রাবির ‘ই’ ইউনিটের ফলাফল সংশোধন

ক্যাম্পাসের খবর রাজশাহী রাজশাহী বিভাগ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথমবর্ষের ভর্তি পরীক্ষার ‘ই’ ইউনিটের ফলাফল প্রকাশের ৬দিন পর আবারো ফলাফল সংশোধন করা হয়েছে। সংশোধিত এই রেজাল্টে ১৮৩ জন শিক্ষার্থীর ফলাফল পরিবর্তন আনা হয়েছে।

সোমবার(২৩ নভেম্বর) দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সেন্টারের প্রশাসক প্রফেসর খাদেমুল ইসলাম মোল্লা বাংলানিউজকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
প্রফেসর খাদেমুল ইসলাম মোল্লা বলেন, ‘ওএমআর মেশিনে উত্তরপত্র স্ক্যানিং করার পর প্রাপ্ত নম্বরের ভিত্তিতে ভর্তিচ্ছুদের সিরিয়াল দেওয়া হয়েছিল। কারণ একজন শিক্ষার্থী উত্তরপত্রে কতটা বৃত্ত পূরণ করেছে, কতটা ভুল করেছে আর কতটা ফাঁকা রেখেছে, তা একটা নির্দিষ্ট পদ্ধতির মাধ্যমে আমরা ফলাফল গড় করি। কিন্তু রোববার(২২ নভেম্বর) আমরা একটা ওএমআর শিট পরীক্ষা করে দেখতে পাই যে হিসেবে একটু গড়মিল আছে। তাই তাৎক্ষণিকভাবে ওয়েবসাইট থেকে ফলাফল তুলে নিয়ে আজ সংশোধন করে প্রকাশ করা হয়।

তিনি আরও বলেন, ‘ফলাফল পরিবর্তন করায় যোগ্য শিক্ষার্থীরাই ভর্তি হওয়ার সুযোগ পাবে। কারণ এ সমস্যা এখন ধরা না পড়লেও ভর্তির জন্য মৌখিক পরীক্ষা নেওয়ার সময় অবশ্যই দৃষ্টি গোচর হতো। তখন ভর্তির জন্য সুযোগপ্রাপ্তদের সমস্যা ধরা পড়তো এবং তারা ভর্তি হতে পারতো না। তবে, ফলাফল নিয়ে কোনো অভিযোগ এলে অভিযোগকারী ভর্তিচ্ছু উত্তরপত্র প্রদান করে তাকেই যাচাই করতে দেওয়া হবে।

এর আগে প্রকাশিত ফল রোববার (২২ নভেম্বর) ওয়েবসাইট থেকে সরিয়ে নেওয়া হয়। পরে পুনরায় সংশোধন করে আজ সোমবার আবার ১৮৩ জনকে বাদ দিয়ে পুনরায় এ ফল প্রকাশ করা হয়। নতুন করে প্রকাশিত এ ফলে অনেক শিক্ষার্থী পড়েছেন বিড়ম্বনায়।

নতুন ফলাফলের বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে আগের তালিকায় ২৬৫তম হওয়া শিক্ষার্থী আলতাফ হোসেন বলেন ‘আগের তালিকায় আমি ২৬৫তম হয়েছিলাম কিন্তু সংশোধণী ফলাফলে আমার রোল নম্বর (ই১৯৬৩০) সার্চ দিলে ফেল দেখাচ্ছে। আমি এখন কি করব তা ভেবে পাচ্ছিনা।’

রেজাল্ট প্রকাশে এমন ভুল রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো একটি প্রতিষ্ঠানের জন্য অপমানজনক বলে উল্লেখ করেন তিনি।
আগের রেজাল্টে কোনো সিরিয়ালই আসেনি। কিন্তু সংশোধনীতে মেধা তালিকায় স্থান করে নেওয়া বিথী খাতুন (রোল- ই২০৭৬৪) বলেন, আগের রেজাল্টে আমার সিরিয়াল না আসায় পারবারিক ও মানসিকভাবে আমি নানা চাপের মুখে পড়েছিলাম। কিন্তু সংশোধনী রেজাল্টে আমার সিরিয়াল এসেছে ১৯৩তম।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন ড. নীলুফার সুলতানা বাংরানিউজকে বলেন, যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে এই ইউনিটের ফলাফল পরিবর্তন হওয়ায় আমরা দুঃখ প্রকাশ করছি। নতুন করে পুনরায় ফলাফল প্রকাশ করা হয়েছে। এ ফলাফলের ভিত্তিতেই ‘ই’ ইউনিটের ভর্তি কার্যক্রম পরিচালিত হবে।

গত ১৭ নভেম্বর ই-ইউনিটের জোড় ও বিজোড় রোল নম্বরধারীদের মেধাতালিকা প্রকাশ করা হয়। এ বছর ই-ইউনিটে মোট ৭৯৮টি আসনের বিপরীতে পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে ২৫ হাজার ৫৬৩ জন শিক্ষার্থী ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নেয়।
এদিকে, সাক্ষাৎকার গ্রহণ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটের বিজ্ঞপ্তিতে এ বলা হয়, ‘সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ‘ই’ ইউনিটে ২০১৫-২০১৬ শিক্ষাবর্ষে ১ম বর্ষ (সম্মান) শ্রেণিতে ভর্তিচ্ছু বিজোড় রোলধারীদের মেধাক্রম ১ থেকে ১১৮৬ পর্যন্ত এবং জোড় রোলধারীদের মেধাক্রম ১ থেকে ১১৬৭ পর্যন্ত প্রার্থীদের সাক্ষাৎকার গ্রহণ করা হবে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়, আগামী ০৫ ডিসেম্বর ২০১৫ তারিখের মধ্যে ভর্তির পছন্দক্রম ইন্টারনেটের মাধ্যমে দাখিল করতে হবে এবং ডাউনলোডকৃত চয়েসফর্ম সাক্ষাৎকারের সময় সঙ্গে আনতে হবে। আগামী ৭ ও ৮ ডিসেম্বর এই ইউনিটে সাক্ষাৎকার বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিনস কমপ্লেক্স-এ গ্রহণ করা হবে।

বাংলানিউজ