রাবি ছাত্রী অপহরণ : সাবেক স্বামীসহ ২ জন রিমান্ডে

ক্যাম্পাসের খবর রাজশাহী রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) বাংলা বিভাগের ছাত্রীকে অপহরণের ঘটনায় সাবেক স্বামীসহ দুই জনের এক দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করা হয়েছে। রবিবার বিকালে রাজশাহী মহানগর মুখ্য হাকিম আদালতের বিচারক মাহবুবুর রহমান শুনানি শেষে তাদের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। রাজশাহী মহানগর সহকারী কমিশনার ইফতে খায়ের আলম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

ইফতে খায়ের আলম জানান, রবিবার মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ইসমাইল হোসেন গ্রেফতারকৃত ওই ছাত্রীর সাবেক স্বামী সোহেল রানা, সোহেল রানার বাবা জয়নাল আবেদীন ও গাড়ি চালক জাহিদুল ইসলামের পাঁচ দিনের রিমান্ড চেয়ে আবেদন করেন। শুনানি শেষে আদালত সোহেল রানা ও জাহিদুল ইসলামের এক দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন এবং জয়নাল আবেদীনকে জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

প্রসঙ্গত, গত শুক্রবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে বাংলা বিভাগের চতুর্থ বর্ষের চূড়ান্ত পরীক্ষা দিতে তাপসী রাবেয়া আবাসিক হল থেকে বের হয়েছিলেন ওই ছাত্রী। এ সময় তার সাবেক স্বামী সোহেল রানাসহ কয়েকজন জোরপূর্বক তাকে মাইক্রোবাসে তুলে নিয়ে যায়। পরে ওই ছাত্রীর সন্ধান চেয়ে বিকাল ৪টা থেকে উপাচার্যের বাসভবন ঘেরাও কর্মসূচি পালন করে শিক্ষার্থীরা। ওইদিন সন্ধ্যায় মতিহার থানায় ওই ছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে অপহরণ মামলা দায়ের করেন। মামলায় সাবেক স্বামী সোহেল রানাসহ ৫ জনকে আসামি করা হয়। পরে রাতে ওই ছাত্রীর শ্বশুর জয়নাল আবেদীনকে নওগাঁ পত্মীতলা থেকে আটক করা হয়।

পরদিন শনিবার দুপুরে ওই ছাত্রীকে তার সাবেক স্বামীসহ ঢাকার একটি কাজী অফিস থেকে উদ্ধার করা হয়। ওইদিন রাতেই তাদের রাজশাহী আনা হয়।

পুলিশ কমিশনার জানান, এক বছর আগে তাদের বিয়ে হয়। কিছুদিন আগে ‍ওই ছাত্রী তার স্বামীকে ডিভোর্স দেন। ডিভোর্স অফিসিয়ালি কার্যকর হতে তিন মাস সময় লাগবে বলে তিনি বিচ্ছেদ ঠেকাতে স্ত্রীকে শুক্রবার ক্যাম্পাস থেকে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে যান।

খবরটি প্রকাশিত হয়েছেঃ ডেইলি সানশাইন

রাজশাহী এক্সপ্রেস রাজশাহী বিভাগ কেন্দ্রিক সর্বপ্রথম ইন্টারনেট মিডিয়া। অনলাইনে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা রাজশাহী সম্পর্কিত সব তথ্য গুলোকে সহজে জানার জন্য একত্রিত করে প্রকাশ করাই আমাদের লক্ষ্য। এখানে সংগৃহীত তথ্যগুলোর স্বত্ব (copyright) সম্পূর্ণভাবে সোর্স সাইটের এবং আমাদের সংগৃহীত প্রতিটা এক্সপ্রেসে সোর্স সাইটের রেফারেন্স লিংক উদ্ধৃত আছে। এ বিষয়ে আমাদের কোনো দায়বদ্ধতা নেই।