রামেক হাসপাতালে করোনা আতঙ্ক চিকিৎসকদের ব্রিফিং বাতিল

রাজশাহী

রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের সাধারণ ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন একজন রোগির শরীরে করোনাভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া গেছে। আব্দুস সোবহান নামের ৮০ বছর বয়সের ওই রোগি গত ১৭ এপ্রিল রামেক হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিল। সোমবার তার নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার পর করোনা পাওয়া গেছে। সোমবার রাতে নমুনা পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশের পর হাসপাতালে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।

এদিকে, হাসপাতালকে ঝুঁকিপূর্ণ উল্লেখ্য করে চিকিৎসকদের প্রকাশ্যে নিয়মিত প্রেস ব্রিফিং বাতিল করেছে কর্তৃপক্ষ। প্রতিদিন সাড়ে ১০টার দিকে হাসপাতালের গেটে করোনাভাইরাসের রাজশাহীর সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে চিকিৎসকরা ব্রিফিং করতেন। কিন্তু এখন আর ব্রিফিং করা হবে না। তবে সেটি অনলাইনে করার চিন্তা চলছে বলে জানিয়েছেন করোনা নির্ণয় ও চিকিৎসক টিমের প্রধান ডা. আজিজুল হক আজাদ।

মঙ্গলবার নিয়মিত ব্রিফিংয়ে ডা. আজাদ বলেন, সংক্রমক হাসপাতালে ভর্তি রোগির বয়স ৮০ বছর। তাকে বুঝতে আমাদের একটি দেরি হয়ে যায়। কারণ তিনি বলেননি বাহির থেকে আসা কারও সংস্পর্কে গিয়েছিলেন। তিনি জ্বর ও প্রস্রাবের সমস্যার কথা বলে ভর্তি হয়েছিলেন। সেভাবেই তার চিকিৎসা দেয়া হয়। তবে তার বুকের এক্স-রে করার পর করোনার উপসর্গ কিছুটা বোঝা যায়। এর পর তাকে করোনা ওয়ার্ডে পাঠানো হয়। পরে তার নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য পাঠায়।

ডা. আজাদ বলেন, এই রোগির চিকিৎসা শুরু হয়েছে। তিনি এখন পর্যন্ত ভাল আছেন। সংক্রমক ব্যাধি হাসপাতালে তার স্ত্রী ও ছেলে রয়েছেন। তাদেরও নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। পরীক্ষা করে দেখা হবে তাদের অবস্থা। এছাড়াও সংক্রমক ব্যাধি হাসপাতালে আরও যে নয়জন ভর্তি রয়েছেন তারা সুস্থ্য আছেন। তাদের নমুনায় করোনা পাওয়া যায়নি। তাদের ছেড়ে দেয়া হবে।

তিনি বলেন, রাজশাহীতে আক্রান্ত অপর সাত রোগি ভাল রয়েছেন। সবার চিকিৎসা চলছে। তাদের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রক্ষা করা হচ্ছে। ১৪ দিন পার হওয়ার পর প্রত্যেকের দ্বিতীয় পরীক্ষা করা হবে বলে জানান তিনি।
প্রেস ব্রিফিং অন্যদের মধ্যে রাজশাহী সদর আসেন সংসদ সদস্য ফজলে হোসেন বাদশা ও রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা. সাইফুল ফেরদৌস উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে সোমবার পরীক্ষার পর রাজশাহীতে আরও তিনজন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগি শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে দুইজন মহিলা ও একজন পুরুষ। এ নিয়ে রাজশাহীতে করোন ভাইরাসে আক্রান্ত রোগির সংখ্যা দাড়িয়েছে আটজনে।

রাজশাহী জেলার আটজনের মধ্যে পুঠিয়া উপজেলায় পাঁচজন, বাঘায় একজন, বাগমারায় একজন ও মোহনপুরে একজন আক্রান্ত রয়েছেন। এদের মধ্যে চারজন নারী ও চারজন পুরুষ। তাদের মধ্যে সাতজন ঢাকা, নারায়নগঞ্জ ও গাজীপুর থেকে এসেছেন।

খবর কৃতজ্ঞতাঃ দৈনিক সানশাইন