রোজার আগে রাজশাহীর বাজারে নিত্যপণ্যের দাম গরম

রাজশাহী

চলতি মাসের শেষ সপ্তাহে পবিত্র রমজান মাস শুরু হচ্ছে । আর রমজানকে সামনে রেখে রাজশাহীর বাজারে বেড়েই চলেছে নিত্যপণ্যের দাম। ইতোমধ্যে, চিনি, বুট, মটর,কিসমিস, খেজুর আটা,বেসন,চিড়া,সয়াবিন তেল, সরিষার তেল,খেশারী ডাল,মসুর ডাল এর দাম বেড়েছে। বিভিন্ন বাজারে ক্রেতা-বিক্রেতারা প্রায়ই বাকবিতগুয়ায় জড়াচ্ছেন।

বুধবার দুপুরে নগরীর সাহেববাজার, শালবাগান, কোর্ট হড়গ্রাম বাজারসহ কয়েকটি বাজার ঘুরে দেখা যায় যে, চিনি প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৬৮ টাকা দরে। ১৫ দিন আগে যার দাম ছিলো ৬৬ টাকা কেজি। চিনির মূল্য কেজিতে বেড়েছে দুই টাকা। বুটের বর্তমান মুল্য কেজিতে ৮৮ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। যা আগের মুল্য ছিলো ৮৫ টাকা। বুটের দাম কেজিতে বেড়েছে তিন টাকা।

এছাড়াও প্রতি কেজি কিসমিস বিক্রি হচ্ছে ৩৬০ থেকে ৩৮০ টাকা দরে। অল্পদিন আগে প্রতি কেজি বিক্রি হয়েছিলো ৩২০ টাকা থেকে ৩৩০ টাকা দরে। কেজিতে বেড়েছে ৪০ থেকে ৫০ টাকা। খেজুর বর্তমানে বাজারে বিক্রি হচ্ছে ২৮০ টাকা কেজি। আগের দাম ছিলো ২৬০ টাকা। খেজুরের দাম কেজিতে বেড়েছে ২০ টাকা।

সয়াবিন তেল প্রতি লিটার ৮৫ টাকা, সরিষার তেল প্রতি লিটার ১২০ টাকা, নারিকেল তেল ৪০০ টাকা। মসুর ডাল প্রতি কেজি ১১৫ টাকা, মুগ ১২০ টাকা, বুট ১০৫ টাকা, মটর ১৩০ টাকা, কালাইয়ের ডাল ১১০ টাকা, খেশারী ডাল ৮০ টাকা, এ্যাঙকরের ডাল ৪৫ টাকা। আটা প্রতি কেজি ৩০ টাকা, ময়দা ৪৩ টাকা, বেসন প্রতি কেজি ১২০ টাকা, চিড়া ৫৬ টাকা।

সাহেব বাজারে এক ক্রেতার সাথে কথা হলে তিনি জানান, হঠাৎ পণ্যের দাম বাড়ার কারণে হতাশা ও উদ্বেগ সৃষ্টি হয়েছে। রোজার ৩ সপ্তাহ আগ থেকেই বাজার গরম হয়ে উঠেছে। পণ্য মূল্য ক্রমেই ক্রয় ক্ষমতার বাইরে চলে যাচ্ছে।

কোর্ট হড়গ্রাম বাড়ারে আরেক ক্রেতা নাসরিন জানান, হঠাৎ করে পণ্যের দাম বাড়লেও বেতন বাড়েনি। রোজার মাস এবার যে কীভাবে চলবো সে ভাবনায় দিশেহারা হতে হচ্ছে।

নগরীর সাহেববাজার এলাকার মুদি ব্যবসায়ী আরাফাত জানান, রোজার আগে যেসব পণ্যের চাহিদা বাড়ে সেগুলোর আমদানি বেশি থাকলে দাম ঠিক থাকে। আমদানি কম থাকার কারণে পণ্যের দাম কিছুটা বৃদ্ধি পাচ্ছে।

খবরঃ Allnewsbd24

2 thoughts on “রোজার আগে রাজশাহীর বাজারে নিত্যপণ্যের দাম গরম

Comments are closed.