লঙ্কান যুবাদের আরেকটি জয়

খেলাধুলা

যুব বিশ্বকাপের একাদশতম আসরে গ্রুপ ‘বি’ ম্যাচে সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে জয় পেয়েছে শ্রীলঙ্কা অনূর্ধ্ব-১৯ দল। আফগানিস্তানকে ৩৩ রানে হারিয়ে পরের রাউন্ডে উঠার পথ অনেকটাই পরিষ্কার করলো লঙ্কান যুবারা।

টসে জিতে আগে ব্যাট করে লঙ্কান যুবারা ১৮৪ রানেই গুটিয়ে যায়। তবে, বোলারদের দারুণ পারফর্মে আফগানদের ১৫১ রানে গুটিয়ে দেয় শ্রীলঙ্কার তরুণরা। নিজেদের প্রথম ম্যাচে গ্রুপের আরেক দল কানাডাকে হারায় শ্রীলঙ্কা।

শনিবার (৩০ জানুয়ারি) আগে ব্যাটিংয়ে নেমে শ্রীলঙ্কান দুই ওপেনার কেভিন বানদারা আর আভিসকা ফার্নান্দো স্কোরবোর্ডে ৪৮ রান তোলেন। বানদারা ২০ ও ফার্নান্দো ৩০ রান করে বিদায় নেন। এরপরই খেই হারিয়ে ফেলে লঙ্কানরা। নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকে তারা।

কামিন্দু মেন্ডিস ১৩, ওয়ানিদু হাসারাঙ্গা ২০ ও দামিথা সিলভা ১৪ রান করে বিদায় নেন। তবে, দলপতি চারিথ আসালাঙ্কা ইনিংস সর্বোচ্চ ৭১ রান করে দলকে লো-স্কোরের হাত থেকে উদ্ধার করেন। তার ৯১ বলে সাজানো ইনিংসে ছিল ৮টি বাউন্ডারি আর একটি ওভার বাউন্ডারি।

৪৮.১ ওভার ব্যাট করে অলআউট হওয়ার আগে শ্রীলঙ্কা ১৮৪ রান তুলতে সক্ষম হয়।

আফগানদের হয়ে সর্বোচ্চ তিনটি উইকেট নেন শামসুর রহমান। এছাড়া দুটি করে উইকেট পান কারিম জানাত ও জহির খান।

১৮৫ রানের টার্গেটে ব্যাটিংয়ে নেমে শ্রীলঙ্কার নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে আফগানিস্তান ৪৪.৫ ওভারে গুটিয়ে যায়। দলীয় ১৫ রানের মাথায় ওপেনার নাভিদ ওবায়েদ (২) বিদায় নেন। সেখান থেকে ৩৬ রানের জুটি গড়েন আরেক ওপেনার করিম জানাত ও দলপতি ইহসানুল্লাহ। জানাত ৪০ রান করেন আর ইহসানুল্লাহ করেন ২৩ রান।

এরপর মিডলঅর্ডারের ব্যাটসম্যানরা ব্যর্থ হলে জয় থেকে দূরে সরে যেতে থাকে আফগানরা। তবে, আট নম্বরে নামা ওয়াহিদুল্লাহ শাফাক খেলেন ৪৭ রানের ইনিংস। পরাজয়ের ব্যবধান কমানো ইনিংস খেলতে শাফাকের ব্যাট থেকে আসে ৪টি চার আর ৩টি ছক্কা। শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে আউট হন তিনি।

শ্রীলঙ্কার হয়ে তিনটি উইকেট নেন ৮ ওভারে ৩৬ রান খরচ করা কামিন্দু মেন্ডিস। এছাড়া দুটি করে উইকেট তুলে নেন চারিথ আসালঙ্কা ও দামিথা সিলভা।