শীর্ষে থাকা রংপুরকে হারালো রাজশাহী

খেলাধুলা রাজশাহী

রাজশাহী কিংসের ছুঁড়ে দেওয়া ১৬৩ রানের চ্যালেঞ্জ টপকাতে পারেনি শীর্ষে থাকা রংপুর রাইডার্স। বিপিএলের ২৫তম ম্যাচে ড্যারেন স্যামি-সাব্বির রহমান-মেহেদি হাসান মিরাজদের রাজশাহীর বিপক্ষে ১২ রানে হেরেছে সৌম্য সরকার-মোহাম্মদ মিঠুন-নাঈম ইসলামের রংপুর।

টস হেরে ব্যাট করা রাজশাহী কিংস শীর্ষে থাকা রংপুরের বিপক্ষে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে তোলে ১৬২ রান। ব্যাট হাতে ঝড় তোলেন রাজশাহীর দলপতি ক্যারিবীয়ান তারকা ড্যারেন স্যামি। রংপুরের মোহাম্মদ মিঠুন অর্ধশতক হাঁকালেও ৫ উইকেট হারিয়ে তাদের ইনিংস থামে ১৫০ রানে।

চট্টগ্রাম পর্ব শেষে দু’দিন বিরতির পর আবারো মাঠে গড়ায় বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল)। শুক্রবার (২৫ নভেম্বর) ঢাকা দ্বিতীয় পর্বের প্রথম ম্যাচে রাজশাহী কিংসের বিপক্ষে টস জিতে ফিল্ডিংয়ে নামে আফ্রিদিহীন রংপুর রাইডার্স।

রাজশাহীর হয়ে ইনিংস শুরু করতে নামেন মুমিনুল হক এবং জুনায়েদ সিদ্দিকী। ইনিংসের প্রথম ওভারে রংপুরের হয়ে বোলিং আক্রমণে আসেন স্পিনার সোহাগ গাজী। প্রথম ওভারের তৃতীয় বলেই মুমিনুল হককে এলবির ফাঁদে ফেলেন গাজী। সাজঘরে ফেরার আগে মুমিনুল ৪ রান করেন।

এরপর জুটি গড়েন জুনায়েদ সিদ্দিকী এবং সাব্বির রহমান। দারুণভাবেই দলকে টানছিলেন তারা। ইনিংসের সপ্তম ওভারে আরাফাত সানি ফিরিয়ে দেন সাব্বিরকে। ২৪ বলে চারটি চার আর একটি ছক্কা হাঁকিয়ে ৩১ রান করা সাব্বির স্ট্যাম্পিংয়ের ফাঁদে পড়েন। বিদায়ের আগে জুনায়েদের সঙ্গে ৪৭ রানের দারুণ জুটি গড়েন সাব্বির। দলীয় ৫১ রানের মাথায় দ্বিতীয় উইকেটের পতন ঘটে রাজশাহীর।

দলীয় ৭৫ রানের মাথায় রাজশাহীর তৃতীয় উইকেটের পতন ঘটে। বিদায় নেন ওপেনার জুনায়েদ সিদ্দিকী। লিয়াম ডসনের বলে রুবেলের তালুবন্দি হওয়ার আগে তিনি ২১ বলে করেন ২৩ রান। ওভারের শেষ বলে এলবির ফাঁদে পড়েন সামিত প্যাটেল। ইনফর্ম এই ব্যাটসম্যানের ব্যাট থেকে আসে ১৭ রান। ইনিংসের ১৪তম ওভারে আউট হন মেহেদি হাসান মিরাজ। ধারাবাহিকভাবে ব্যাট হাতে ব্যর্থ রাজশাহীর এই অলরাউন্ডার। মুক্তার আলীর বলে বোল্ড হওয়ার আগে তার ব্যাট থেকে আসে মাত্র ৮ রান। দলীয় ৯২ রানের মাথায় রাজশাহীর টপঅর্ডারের পাঁচ ব্যাটসম্যান বিদায় নেন।

পাঁচ ব্যাটসম্যান ফিরে গেলেও উইকেটে থেকে দুর্দান্ত ব্যাট চালান রাজশাহীর দলপতি ড্যারেন স্যামি। তাকে সঙ্গ দেন পাকিস্তানের উমর আকমল। এই জুটি থেকে মাত্র ৩৭ বলে আসে অবিচ্ছিন্ন ৭০ রান। আকমল ৩০ বলে ২টি চার আর একটি ছক্কায় করেন অপরাজিত ৩৩ রান। আর ড্যারেন স্যামির ব্যাট থেকে আসে অপরাজিত ৪৪ রান। তার ১৮ বলের ইনিংসে ছিল ৩টি চার আর ৪টি ছক্কার মার।

১৬৩ রানের টার্গেটে রাইডার্সের হয়ে ওপেনিংয়ে নামেন মোহাম্মদ শাহজাদ এবং নাসির জামসেদ। ইনিংসের সপ্তম ওভারে বিদায় নেন ইনফর্ম ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ শাহজাদ। দলীয় ২৮ রানের মাথায় নাজমুল হোসেন অপুর বলে এলবির ফাঁদে পড়েন ২৬ বলে দুই বাউন্ডারিতে ১৮ রান করা শাহজাদ। দলীয় ৬৮ রানের মাথায় রানআউট হয়ে ফেরেন পাকিস্তানি ব্যাটসম্যান নাসির জামসেদ। বিদায় নেওয়ার আগে মিঠুনের সঙ্গে ৪০ রানের জুটি গড়েন ২৮ বলে তিনটি চার আর একটি ছক্কায় ২৭ রান করা জামসেদ।

ব্যাট হাতে আবারো নিজেকে খুঁজে পাননি সৌম্য সরকার। ইনিংসের ১৫তম ওভারে নাজমুলের বলে বোল্ড হওয়ার আগে তার ব্যাট থেকে আসে মাত্র ৮ রান। দলীয় ৯৪ রানের মাথায় তৃতীয় উইকেট হারায় রংপুর। পরের ওভারে সাজঘরে ফেরেন আনোয়ার আলী। সামিত প্যাটেলের বলে মোহাম্মদ সামির তালুবন্দি হন ব্যক্তিগত ৫ রান করা আনোয়ার। দলীয় ১০৭ রানের মাথায় নিজেদের পঞ্চম উইকেট হারায় রংপুর।

দ্রুত বিদায় নেন লিয়াম ডসনও। ইনিংসের ১৭তম ওভারে মোহাম্মদ সামির বলে উইকেটের পেছনে উমর আকমলের গ্লাভসবন্দি হন ১০ রান করা লিয়াম। শেষ দুই ওভারে রংপুরের জয়ের জন্য দরকার হয় ২৮ রান। উইকেটে ছিলেন রংপুরের দলপতি নাঈম ইসলাম এবং অর্ধশতক হাঁকানো মোহাম্মদ মিঠুন। শেষ পর্যন্ত অপরাজিত থেকে মিঠুন খেলেন ৩৬ বলে ৬৪ রানের ইনিংস। তার ইনিংসে ছিল তিনটি চার আর চারটি ছক্কার মার। নাঈম অপরাজিত থাকেন ১৪ রানে।

৭ ম্যাচ খেলে রংপুরের সংগ্রহ পাঁচ জয়ে ১০ পয়েন্ট। অপরদিকে, সমান ম্যাচ খেলে রাজশাহী কিংসের সংগ্রহ তিন জয়ে ৬ পয়েন্ট।

খবরঃ বাংলানিউজ