শেষ সময়ে ভিড় রাজশাহীর জুতা বাজারে

রাজশাহী

ঈদের সাজে পোশাকের সাথে চাই মানানসই জুতা। তাই ঈদের কেনাকাটায় পোশাকের পাশাপাশি সমান গুরুত্ব পাচ্ছে হালফেশানের নানা ডিজাইনের জুতা। বিভিন্ন ডিজাইনের নতুন পোশাকের সঙ্গে মিল রেখে জুতা কিনতে দোকানগুলোতে এখন উপচে পড়া ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। বিক্রেতারা জানিয়েছেন রোজার প্রথম দিকে জুতার বেচাবিক্র কম থাকলেও এখন শেষ সময়ে এসে ক্রেতারা ভিড় করছেন জুতার দোকানসমূহে।

সারাবছর চাহিদা থাকলেও ঈদে নেয়া জুতার ব্যাপারে সবাই একটু বেশিই সচেতন থাকেন। কেননা এসময়ের ফ্যাশন সচেতন মানুষ পোশাকের সঙ্গে মানানসই জুতা পরাকে রুচিশীল ব্যক্তিত্বের প্রকাশ বলেই মনে করেন।
স্থানীয় একটি অভিজাত জুতার দোকানের মালিক কাউসার হাবিব বলেন, ‘প্রতিবার ঈদেই আমাদের সংগ্রহে নতুন নতুন ডিজাইনের জুতা ও স্যান্ডেল রাখতে হয়। নয়তো ক্রেতারা মন খারাপ করে।’ তিনি আরও জানন, অনেক ক্রেতা আগেথেকেই দোকনগুলোতে তাদের পছন্দের ডিজাইনের কথা জানিয়ে রাখেন। আর সেই অনুসারেও তুলতে হয় পণ্য।
আরেক ব্যবসায়ী সিজান সরকার জানিয়েছেন, বর্তমানে জুতার বিভিন্ন ব্রান্ড রাজশাহীতে তাদের শো-রুম খুলেছে। ফলে এখন এই ব্যবসায় প্রতিযোগীতা এসেছে। ক্রেতাদের আকৃষ্ট করতে সোরুমে নতুন নতুন ডিজাইনের জুতা না রাখলে সেই সোরুমে ক্রেতাদের ভিড় থাকে না।

সরেজমিনে জুতার সোরুমগুলো ঘুরে দেখা গেছে প্রতিটি সোরুমেই নতুন নতুন ডিজাইনের জুতার ছড়াছড়ি, একই সাথে সোরুমসমূহে দেখা গেছে ক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড়।

উপশহর থেকে সম্পা রেজা এসেছেন সাহেববাজরের জুতা-স্যান্ডেল মার্কেট হতে স্যান্ডেল কনতে। তিনি বলছেন, ‘ঈদে জামার সাথে চাই মানানসই স্যান্ডেল। দোকনগুলো এবার সুন্দর সুন্দর কালেকশন তুলেছে। তবে এবার দাম একটু বেশিই মনে হচ্ছে।’

মনি-মুক্তা দুই বোন। বাবা-মায়ের সাথে নিইমার্কেটের সামনের জুতার দোকানে এসেছেন জুতা কিনতে। তারা বলছেন, ‘এবার ঈদে লাল রংয়ের ফ্রক কিনেছি, তাই আম্মুকে বলেছি আমাদেরকে জুতাও লাল কিনে দিতে হবে।’

ঈদ কেনাকাটায় পরিবারে অগ্রাধিকার পায় শিশুরা। সুন্দর পোশাকের পাশাপাশি ঈদে সোনামণিদের কোমল পায়ের সৌন্দর্য বাড়াতে জুতার প্রতি বাড়তি মনোযোগ দেখা গেছে অভিভাবকদের। তবে দোকনগুলোতে সব শ্রেণির ক্রেতার চাহিদা, পছন্দ আর সাধ্যের কথা মাথায় রেখে নেয়া হয়েছে প্রস্তুতি ও রাখা হচ্ছে নতুন নতুন কালেকশন।

খবরঃ দৈনিক সানশাইন