বাংলালিংকের ডিভাইসেই টেলিটকের সিম ভেরিফিকেশন

তথ্য প্রযুক্তি

বায়োমেট্রিক বা আঙ্গুলের ছাপ পদ্ধিতে সিম নিবন্ধনে রাষ্ট্রায়ত্ত মোবাইল ফোন অপারেটর টেলিটকের সঙ্গে চুক্তি করেছে দ্বিতীয় বৃহত্তম সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান বাংলালিংক।

চুক্তির আওতায় টেলিটকের গ্রাহকরা বাংলালিংকের ডিভাইস ব্যবহার করে বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে সিম নিবন্ধন এবং ভেরিফিকেশনের সুযোগ পাবে।

বুধবার (১৬ মার্চ) সচিবালয়ে ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিমের উপস্থিতিতে টেলিটকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) গিয়াস উদ্দিন আহমেদ এবং বাংলালিংকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) এরিক অস এ চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন।

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন টেলিটক-এর চেয়ারম্যান এবং ডাক ও টেলিযোগাযোগ সচিব ফয়জুর রহমান চৌধুরী, গ্রামীণফোনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) রাজীব শেঠি, এয়ারটেলের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) পিডি শর্মা।

প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম বলেন, টেলিটকের ডিভাইস কম থাকার কারণে গ্রাহকরা কিছুটা ভোগান্তিতে ছিলেন। এখন থেকে বাংলালিংকের ডিভাইস ব্যবহার করে সিম নিবন্ধন ও ভেরিফিকেশন করতে পারবেন।

মোবাইল সিমের তথ্য যাচাইয়ে গত বছরের ১৬ ডিসেম্বর থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে আঙ্গুলের ছাপ বা বায়োমেট্রিক পদ্ধতি শুরু করা হয়।

সরকার বলছে, এর মাধ্যমে গ্রাহকদের পরিচিতি নিশ্চিত হবে এবং অপরাধ প্রবণতা কমে আসবে।

তিনি আরও বলেন, সব মোবাইল ব্যবহারকারীর বায়োমেট্রিক ভেরিফিকেশন দেশ ও জাতির নিরাপত্তার জন্য অপরিহার্য।

টেলিটকের সঙ্গে বাংলালিংকের বায়োমেট্রিক ডিভাইস শেয়ার করা নিয়ে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন কোম্পানির সিইও এরিক।

তিনি বলেন, একই শিল্পের অংশ হিসেবে আমরা একত্রে এগিয়ে যাওয়াতে বিশ্বাস করি। এর মধ্য দিয়ে আমরা ভবিষতেও নানা কাজ করার সুযোগ পাব।

টেলিটকের এমডি বলেন, সারাদেশে বাংলালিংকের প্রায় ৪৮ হাজার ডিভাইস ব্যবহার করে টেলিটকের গ্রাহকরা বায়োমেট্রিক নিবন্ধন ও ভিরিফিকেশন করতে পারবে।

নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি’র সর্বশেষ ফেব্রুয়ারি মাসের তথ্যানুযায়ী, দেশে ছয়টি অপারেটরের মোট গ্রাহক সংখ্যা ১৩ কোটি ১০ লাখ ৮৫ হাজার।

এর মধ্যে বাংলালিংকের গ্রাহক ৩ কোটি ১৯ লাখ ৬০ হাজার এবং টেলিটকের গ্রাহক ৪২ লাখ ৫৭ হাজার।

প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম জানান, এ পর্যন্ত সব অপারেটরর প্রায় ৪০ শতাংশ সিম বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে নিবন্ধন ও ভেরিফিকেশন সম্পন্ন হয়েছে।

কোনোভাবে গ্রাহকের আঙ্গুলের ছাপ সংরক্ষণ করা হচ্ছে না জানিয়ে তারানা হালিম বলেন, বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে নিবন্ধন ও ভেরিফিকেশন চলছে এবং চলবে।

একটি পক্ষ অপপ্রচার চালাচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বাংলালিংক এক কোটি ১০ লাখের বেশি সিম ভেরিফিকেশন সম্পন্ন হয়ে চলে জানান বাংলালংকের কর্মকর্তারা।

বাংলানিউজ-http://www.banglanews24.com/fullnews/bn/474402.html