ফাইভ জির তরঙ্গ পরীক্ষা করতেই মারা পড়ল শত শত পাখি

তথ্য প্রযুক্তি

সপ্তাহখানেক আগে নেদারল্যান্ডসের এক পার্কে অদ্ভূত এক ঘটনা ঘটে। হঠাৎ করেই গাছের ডালে বসে থাকা পাখিগুলো মরে নিচে পরতে থাকে। একটি বা দুটি নয় এভাবে মারা পড়লো প্রায় তিনশ’ পাখি।

শুধু পাখি নয়, পাশে পুকুরে সাঁতার কাটতে থাকা হাঁসগুলো অদ্ভূত আচরণ করতে শুরু করে। পানির নিচে ডুব দিয়ে কেন যেন হঠাৎ পালানোর চেষ্টা করছিল হাঁসগুলো। খবর প্রিন্সিপিয়া সাইন্টিফিক ইন্টারন্যাশনালের।

নেদারল্যান্ডসে সম্প্রতি পঞ্চম প্রজন্মের টেলিকম নেটওয়ার্ক ফাইভ জি চালু করা হয়েছে। একটি রেল স্টেশনে পরীক্ষামূলকভাবে ওই নেটওয়ার্ক চালু হয়। এর পরেই আজব ঘটনা ঘটতে থাকে।

রেল স্টেশনের আশেপাশের পার্কে শত শত মৃত পাখি পড়ে থাকতে দেখা গেছে। শুরুতে এই খবর দেশটির সরকার সুকৌশলে চেপে রেখেছিল। তবে এক সঙ্গে এতো পাখি মারা যাওয়ায় এই খবর আর চেপে রাখা সম্ভব হয়নি। সব মিলে মৃত পাখির সংখ্যা ছিল ২৯৭ টি।

মূলত ফাইভ জি নেটওয়ার্ক সিগনাল কতদূর পৌঁছায় আর পরিবেশে কোন ক্ষতি করে কী না তা জানাই এই পরীক্ষার উদ্দেশ্য ছিল। কিন্তু এই পরীক্ষায় পরিবেশে বিশাল ক্ষতি হয়ে গেল।

এ ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করে জন নামে নেদারল্যান্ডসের এক পরিবেশপ্রেমী বলেছেন, এতো পাখি একসঙ্গে ব্যাকটেরিয়া বা ভাইরাল ইনফেকশনে হঠাৎ মারা যেতে পারে না। ফাইভ জি নেটওয়ার্ক থেকে নির্গত মাইওক্রোওয়েভ পাখির হৃদপিন্ডে আঘাত হানে। এর পরে হৃদযন্ত্র অকেজ হয়ে মারা গেছে পাখিগুলো।

দেশটিতে ইতোমধ্যে ফাইভ জি নেটওয়ার্ক বন্ধ করার জন্য ইন্টারনেটে আন্দোলন শুরু করেছেন জন। স্টপফাইভজি ডট নেট ওয়েবসাইট থেকে তিনি ফাইভ জি নেটওয়ার্ক থেকে হওয়া সম্ভাব্য ক্ষতি ব্যাপারে সাধারণ মানুষকে সচেতন করার কাজ করে চলেছেন।

খবর কৃতজ্ঞতাঃ যুগান্তর