আসছে সমাবর্তন, সাজছে রাবির ক্যাম্পাস

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

বহুল প্রতিক্ষিত রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) দশম সমাবর্তন আগামী ২৯ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত হবে। বাকি আর মাত্র ৬ দিন। অনুষ্ঠানের সভাপতি বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য ও রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ এবং গ্র্যাজুয়েটদের বরণ করে নিতে বর্ণিল রূপে সাজতে শুরু করছে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস।

বিভিন্ন ভবন ও এর আশপাশে চলছে পরিচ্ছন্নতা ও শোভাবর্ধনের কাজ। সড়কের পাশের গাছগুলোতে সাদা-লাল রঙয়ের আলোকচ্ছটায় চিরচেনা রূপে নতুন মাত্রা যোগ হয়েছে। যা সমাবর্তনের আবেশকে বাড়িয়ে দিয়েছে কয়েকগুণ। ফলে সমাবর্তনকে ঘিরে শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ ক্যাম্পাসের আনাচে-কানাচে যেন উৎসবের আমেজ বইছে। এছাড়া সমাবর্তনকে ঘিরে ক্যাম্পাসের সার্বিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদারের প্রস্তুতিও চলছে।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, আগামী ২৯ সেপ্টেম্বর রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টেডিয়ামে সমাবর্তন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে। এতে অংশ নিতে মোট ৬ হাজার ৯ জন গ্র্যাজুয়েট নিবন্ধন করেছেন। সমাবর্তন উপলক্ষে ক্যাম্পাসে ব্যাপক শোভাবর্ধনের কাজ চলছে। এ কাজের তত্ত্বাবধানে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন একটি কমিটিও গঠন করেছে। বাজেট নির্ধারণ করা হয়েছে প্রায় ২২ লাখ টাকা। নির্ধারিত সময়ের আগেই অনুষ্ঠানের সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করতে ব্যস্ত সময় পার করছেন বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কর্তা-ব্যক্তিরা।

রোববার (২৩ সেপ্টেম্বর) সরেজমিনে দেখা গেছে, বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টেডিয়ামে সমাবর্তন অনুষ্ঠানের মঞ্চ নির্মাণের কাজ শুরু হয়েছে। এরই মধ্যে ২টি প্রশাসনিক ভবন, শহীদ মিনার চত্বর, সাবাস বাংলাদেশ মাঠ, জুবেরী ভবন, শহীদ সুখরঞ্জন সমাদ্দার ছাত্র-শিক্ষক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র (টিএসসিসি), কেন্দ্রীয় মসজিদ চত্বর, কাজী নজরুল ইসলাম মিলনায়তন, উপাচার্যের বাসভবন, শের-ই-বাংলা ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলসহ বেশ কয়েকটি ভবন রঙ করা হচ্ছে।

একাডেমিক ভবনগুলোর মধ্যে রবীন্দ্র ভবন, প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় বিজ্ঞান ভবন রঙ করার পাশাপাশি বিভিন্ন ধরনের বাহারি ফুলের গাছ লাগানো হচ্ছে। এছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয়ের প্যারিস রোডের আশপাশের গাছগুলোতে রঙ করাসহ বেশ কয়েকটি সড়ক সংস্কার ও ঝোপঝাঁড় পরিচ্ছন্ন করা হচ্ছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে থেকে শহীদ ড. শামসুজ্জোহা চত্বর পর্যন্ত ফুটপাত ও বাগানে সৌন্দর্য বর্ধনের কাজ চলছে। জুবেরী ভবনের কাছে প্রস্তুত করা হয়েছে অতিথিদের গাড়ি পার্কিং-এর স্থান।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান প্রকৌশলী মো. সিরাজুম মুনীর জানান, সমাবর্তন উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি ও গ্র্যাজুয়েটরা বিশ্ববিদ্যালয়ে আসছেন। এ উপলক্ষে সবার কাছে বিশ্ববিদ্যালয়কে নতুন আঙ্গিকে উপস্থাপনের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সর্বোচ্চ চেষ্টা করছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান বলেন, ‘সমাবর্তনকে কেন্দ্র করে ক্যাম্পাসে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। অনুষ্ঠানের দিন ক্যাম্পাস জুড়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সর্বোচ্চ সতর্কাবস্থানে থাকবে। এছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব সিসি ক্যামেরার ব্যবস্থাও রয়েছে।’

খবর কৃতজ্ঞতাঃ বাংলানিউজ২৪