আমেরিকা আক্রমণ করতে চেয়েছিল বিন লাদেন

আন্তর্জাতিক

জীবিত থাকার শেষ বছরগুলোতে আমেরিকা আক্রমণ করতে চেয়েছিলেন ওসামা বিন লাদেন। তিনি তার অনুসারীদের সে তাগিদও দিয়েছিলেন। নতুন প্রকাশিত কিছু নথিপত্রের বরাত দিয়ে এমন দাবি করা হয়েছে। খবর বিবিসি।

আল কায়দা প্রধান পাকিস্তানের যে বাড়িতে আত্মগোপনে থাকা অবস্থায় নিহত হন, সে বাড়ি থেকে পাওয়া কিছু নথিপত্র সম্প্রতি আমেরিকা প্রকাশ করেছে।

নথিপত্রের মধ্যে রয়েছে তার সঙ্গীকে লেখা আরবি ভাষার চিঠিপত্র, তার এক স্ত্রীকে লেখা একটি প্রেমপত্র এবং সন্ত্রাসী গ্রুপে যোগ দেওয়ার আবেদনপত্র।

এ ছাড়া তার কাছে ছিল ইংরেজি ভাষায় লিখিত অর্থনীতি ও সামরিক তত্ত্বের বই।

চিঠিগুলোর মধ্যে একটি চিঠিতে বিন লাদেন তার এক সহযোগীকে নির্দেশ দেন, ‘আমেরিকায় যুদ্ধ করার জন্য “আমার ভাইয়েরা” প্রস্তুত থাক।’

চিঠিতে বিন লাদেন বলেন, ‘কাজ হলো আমেরিকার ট্রাঙ্কের ওপর মনোযোগ দিয়ে আপত্তিকর বিষয়গুলো উপড়ে ফেলা এবং স্থানীয় নিরাপত্তা বাহিনীর বিষয় নিয়ে ব্যস্ত না থাকা।’

আমেরিকার জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থার পরিচালকের অফিস বলেছে, ‘স্পাই এজেন্সি এই নথি প্রকাশের নির্দেশ দেওয়ার আগে তা ভালোভাবে পর্যালোচনা করা হয়েছে।’

সব মিলিয়ে ১০৩টি কাগজ ও ভিডিও রয়েছে। যেখানে কয়েকটি অনুবাদ করা চিঠি, নোট এবং আল কায়দার অপারেশন সম্পর্কে বিস্তারিত বর্ণনা রয়েছে। অধিকাংশ নথিপত্রের আরবি সংস্করণও রয়েছে।

ফ্রান্সসংক্রান্ত একটি অনুচ্ছেদ রয়েছে, যেখানে ফ্রান্সের সামরিক বাহিনী, রাজনীতি ও অর্থনীতি নিয়ে বেশ কয়েকটি অ্যাকাডেমিক প্রতিবেদন রয়েছে।

এ ছাড়া নথিপত্রে অন্তর্ভুক্ত ছিল ‘আত্মহত্যা প্রতিরোধ গাইড’, বব উডওয়ার্ডের ওবামা’স ওয়ার বইসহ বেশ কয়েকটি ইংরেজি বই, বেশ কিছু মানচিত্র এবং কয়েকটি ভিডিও গেম গাইড।

তিনি তার এক স্ত্রীর জন্য একটি ভিডিও ধারণ করেন। ভিডিওতে তিনি বলেন, ‘জেনে থাকবে যে, তুমি আমার হৃদয় পূর্ণ করেছ ভালোবাসা ও সুন্দর স্মৃতিতে। আমাকে সুখে রাখার জন্য ধৈর্য ধারণ করেছ, অনেক কষ্ট করেছ। তুমি আমার প্রতি সদয় ছিলে।’