রাজশাহীতে গরু সংকটে জবাই হচ্ছে বাছুর

রাজশাহী

ভারত সরকার বাংলাদেশে গরু আমদানি বন্ধ করে দেয়ার কারণে গরুর মাংসের দাম বেড়েছে। অনেকেই তা নিয়ে হতাশায় পড়েছেন। এদিকে গরুর দাম বেশি হওয়ায় দেশি ছোট গরু রাজশাহীর আশেপাশের হাটবাজারগুলোতে বিক্রি হতে শুরু হয়েছে। এতে ক্রেতা ও বিক্রেতা উভয়ের মনে আগামীতে গরু’র অভাব আরো বেশি হতে পারে বলে আশঙ্কা জেগেছে।

বুধবার নগরীর সিটি বাইপাস হাটে গিয়ে দেখা যায় যে, হাটে যেসব গরু বিক্রির জন্য নিয়ে আসা হয়েছে তার ৭০ ভাগ গরু ছোট। এতো বেশি পরিমানে ছোট গরু বাজারে উঠেছে যে অদুর ভবিষ্যতে গরু শূণ্য হয়ে পড়বে। শুধু তাই না, আগামী কোরবানীতে বাজারে বিপুল পরিমানে গরু ঘাটতি দেখা দিতে পারে বলে গরু ব্যবসায়ীরা আশঙ্কা প্রকাশ করছেন।

বুধবার সিটি হাটে যে পরিমানে গরু বিক্রির জন্য বাজারে উঠেছে তার ৭০ ভাগের বেশি ছোট গরু। এসব গরু অপ্রাপ্তবয়স্ক। অনেক কসাই এ ধরনের গরু বাজার থেকে কিনে নিয়ে গিয়ে বেশি লাভের আশায় মাংসের জন্য বিক্রি করছে। ক্রেতা ও বিক্রেতাদের অনেকেই আশঙ্কা করছে যে এ ভাবে যদি ছোট গরু বিক্রি হয় তাহলে অদুর ভবিষ্যতে গরু’র আকাল পড়বে।

মোকলেসুর রহমান নামে রাজশাহী সিটি হাটের ইজারদারদের একজন জানান, ভারতীয় গরু যখন আসতো তখন ১২ থেকে ১৪ হাজার গরু বাজারে আসতো। কিন্তু বর্তমান সময়ে হাটে গরু আমদানী হচ্ছে এক হাজার ২০০টি থেকে এক হাজার ৪০০টি মতো। এসব গরুর বেশির ভাগ আবার দেশি অপ্রাপ্তবয়স্ক।
মাংসের দাম বেশি হওয়ার কারণে বাজারের গরুর দাম বেড়েছে। ৬০ কেজি ওজনের গরু বুধবার সিটি হাটে বিক্রি হয়েছে ৪০ থেকে ৪২ হাজার টাকায়। ৪৫ থেকে ৫০ কেজি ওজনের গরু বিক্রি হচ্ছে ৩২ থেকে ৩৬ হাজার টাকায়।

দীর্ঘদিন ধরে সিটি হাট থেকে গরু কিনে নিয়ে যান সিরাজগঞ্জ এলাকার হেলাল নামে এক গরু ব্যবসায়ী। তিনি জানান, হাটে যেসব গরু উঠছে তার বেশির ভাগের বয়স কম। এসব গরুর চাহিদা ঢাকা বা আশেপাশের এলাকায় অনেক কম।
তিনি আরো জানান, দীর্ঘদিন ধরে তিনি গরু ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। এতোদিনের ব্যবসায়ী জীবনে তিনি এতো সংখ্যক ছোট গরু হাটে আমদানী হতে দেখেননি। এভাবে যদি ছোট গরু বিক্রি শুরু হয় তাহলে আগামী কোরবানীতে গরু’র দাম আরো বেশি বৃদ্ধি পাবে।

এ পরিস্থিতি সামাল দিতে পাশের দেশগুলো থেকে গরু আমদানীর পরামর্শ দিয়েছেন গরু ব্যবসায়ীরা। ব্যবসায়ীদের কয়েকজন জানান, পাশের দেশগুলো থেকে যদি গরু আমদানী আগের মতো স্বাভাবিক করা যায় তাহলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে আসবে। এ বিষয়ে সরকারের প্রতি সদয় দৃষ্টি দেয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।

সূত্র এবং কৃতজ্ঞতাঃ ডেইলি সানশাইন