ছয় সিটির নির্বাচনের দিনক্ষণ

রাজশাহী

চলতি বছরের ডিসেম্বর থেকে আগামী বছরের জুনের মধ্যে ছয় সিটি করপোরেশন নির্বাচন শেষ করার পরিকল্পনা নিয়েছে নির্বাচন কমিশন। এক্ষেত্রে নভেম্বরের মাঝামাঝিতে তফসিল ঘোষণা করে ডিসেম্বরের শেষ দিকে রংপুর সিটিতে ভোট করার চিন্তা করা হচ্ছে।

আর আগামী বছরের মার্চ-এপ্রিলের মধ্যে গাজীপুর সিটিতে এবং জুনের মধ্যে রাজশাহী, বরিশাল, খুলনা, সিলেটেও ভোটের প্রাথমিক পরিকল্পনা রয়েছে কমিশনের। তবে গাজীপুরসহ পাঁচ সিটিতে একসঙ্গে ভোট করার প্রস্তাব দিয়েছে ইসি সচিবালয়।

রাজশাহী সিটিতে ভোট হয়েছে ২০১৩ সালের ১৫ জুন। প্রথম সভা হয় ২০১৩ সালের ৬ অক্টোবর। আইন অনুযায়ী এ সিটির মেয়াদ পূর্ণ হবে ২০১৮ সালের ৫ অক্টোবর। আগামী বছরের ৯ এপ্রিল থেকে নির্বাচনের দিন গণনা শুরু হবে। আগামী বছরের ৫ অক্টোবরের মধ্যে নির্বাচন করতে হবে।

রংপুর সিটি নির্বাচন হয়েছিল ২০১২ সালের ২০ ডিসেম্বর। প্রথম সভা হয়েছে ২০১৩ সালের ১৯ মার্চ। আইন অনুযায়ী এ সিটির মেয়াদ পূর্ণ হবে ২০১৮ সালের ১৮ মার্চ, তাই এর ১৮০ দিন পূর্বে নির্বাচন করার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। সেই হিসাবে গত ২০ সেপ্টেম্বর এ নির্বাচনের দিন গণনা শুরু হয়েছে। আগামী বছরের ১৮ মার্চের মধ্যে নির্বাচন করতে হবে।

গাজীপুর সিটিতে ভোট হয়েছে ২০১৩ সালের ৬ জুলাই। প্রথম সভা হয় ২০১৩ সালের ৫ সেপ্টেম্বর। আইন অনুযায়ী এ সিটির মেয়াদ পূর্ণ হবে ২০১৮ সালের ৪ সেপ্টেম্বর। আগামী বছরের ৮ মার্চ থেকে নির্বাচনের দিন গণনা শুরু হবে। আগামী বছরের ৪ সেপ্টেম্বরের মধ্যে নির্বাচন করতে হবে।

সিলেট সিটিতে ভোট হয়েছে ২০১৩ সালের ১৫ জুন। প্রথম সভা হয় ২০১৩ সালের ৯ সেপ্টেম্বর। আইন অনুযায়ী এ সিটির মেয়াদ পূর্ণ হবে ২০১৮ সালের ৮ সেপ্টেম্বর। আগামী বছরের ১৩ মার্চ থেকে নির্বাচনের দিন গণনা শুরু হবে। আগামী বছরের ৮ সেপ্টেম্বরের মধ্যে নির্বাচন করতে হবে।

খুলনা সিটিতে ভোট হয়েছে ২০১৩ সালের ১৫ জুন। প্রথম সভা হয় ২০১৩ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর। আইন অনুযায়ী এ সিটির মেয়াদ পূর্ণ হবে ২০১৮ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর। আগামী বছরের ৩০ মার্চ থেকে নির্বাচনের দিন গণনা শুরু হবে। আগামী বছরের ২৫ সেপ্টেম্বরের মধ্যে নির্বাচন করতে হবে।

বরিশাল সিটিতে ভোট হয়েছে ২০১৩ সালের ১৫ জুন। প্রথম সভা হয় ২০১৩ সালের ২৪ অক্টোবর। আইন অনুযায়ী এ সিটির মেয়াদ পূর্ণ হবে ২০১৮ সালের ২৩ অক্টোবর। আগামী বছরের ২৭ এপ্রিল থেকে নির্বাচনের দিন গণনা শুরু হবে। আগামী বছরের ২৩ অক্টোবরের মধ্যে নির্বাচন করতে হবে।

ইসির কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, একাদশ সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে চলতি বছরের ডিসেম্বর থেকে পরের বছর জুন মাসের মধ্যে তিন ধাপে বা দুই ধাপে ছয়টি সিটি করপোরেশনে ভোট করার লক্ষ্য ধরে এগোচ্ছে নির্বাচন কমিশন। আগামী বছর ৩০ অক্টোবর থেকে ২০১৯ সালের ২৮ জানুয়ারির মধ্যে একাদশ সংসদ নির্বাচন হওয়ার কথা। তার আগেই রংপুর, রাজশাহী, বরিশাল, খুলনা, সিলেট ও গাজীপুর সিটিতে নির্বাচন করার প্রস্তুতি শুরু করেছে কে এম নূরুল হুদার নেতৃত্বাধীন কমিশন।

খবরঃ ডেইলি সানশাইন