নিজেদের টিকিট কালোবাজারিতে জড়িত দেশ ট্রাভেলস?

নির্বাচিত খবর রাজশাহী

ছাড়া মাত্রই হাওয়া দেশ ট্রাভেলস এর বাস টিকিট!

তথ্য প্রযুক্তির উন্নয়নের এই যুগে ঘরে বসে বাস কিংবা ট্রেনের টিকিট কাটা খুবই জনপ্রিয় একটি বিষয়। ঘণ্টার পর ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়ে টিকিট কাটার চেয়ে ঘরে বসে টিকিট কাটতে চান অনেকেই।

মানুষদের ইদ যাত্রাকে সহজ করতে বিভিন্ন বাস পরিবহণের টিকিট বিক্রি হচ্ছে ইন্টারনেটে। বাস কোম্পানিগুলোর নিজস্ব ওয়েবসাইটের পাশাপাশি! সহজ ডট কম, বাস বিডি ডট কম-এর মতো ওয়েবসাইট গুলোতে বাসের টিকিট বিক্রি হচ্ছে। কিন্তু মিলছে কি সেই স্বপ্নের টিকিট?

রাজশাহীবাসী কি ঠিকমত পাচ্ছেন ইদের টিকিট? এরই প্রেক্ষিতে রাজশাহী এক্সপ্রেস নজর রাখে ঢাকা-রাজশাহী রুটের বিভিন্ন বাস কোম্পানির ওয়েবসাইটগুলোতে।

ইদের অগ্রীম টিকিট বিক্রির শুরুতে গত ৩০ মে অনলাইনে টিকিট কাটার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয় রাজশাহী এক্সপ্রেস।

ইদের পরে ঢাকামূখী বাসের টিকিট বিক্রি শুরু হয়েছে ১০ জুন থেকে। এদিন থেকে অনলাইনে টিকিট বিক্রি করছে দেশ ট্রাভেলস। রাজশাহী এক্সপ্রেস টিম ১০ জুন রাত ১২:০০ টার পর থেকে একাধিকবার চেষ্টা করে ইদের এক সপ্তাহ পর পর্যন্ত বিভিন্ন দিনের টিকিট কেনার চেষ্টা করেও সফল হয়নি।

প্রতিটি এসি বাসের জন্য ৪টি এবং নন এসি বাসের জন্য ৮ টি করে সিট অনলাইনে ছেড়েছে দেশ ট্রাভেলস। দেশ ট্রাভেলস এর ওয়েবসাইট ভিজিট করে দেখা যায় এসব টিকিটও মুহূর্তের মধ্যে শেষ হয়ে যাচ্ছে। সিট নির্বাচন করে পেমেন্ট পর্যন্ত যেতে না যেতেই টিকিট বিক্রি হয়ে গেছে এমন দেখানো হচ্ছে।

 

শুধুমাত্র রাজশাহীর প্রধান কাউন্টার থেকে ইদ টিকিট বিক্রি করে দেশ ট্রাভেলস। এসি বাসে ৫০০ টাকা এবং নন এসি বাসে ৩০ টাকা ভাড়া বাড়ানো হয়েছে ইদ উপলক্ষে। কাউন্টার থেকেও অনেকে টিকিট পাচ্ছেন না বলে অভিযোগ পেয়েছে রাজশাহী এক্সপ্রেস।

তাহলে এসব টিকিট যাচ্ছে কোথায়? কর্তৃপক্ষ কি নিজেরাই জড়িত টিকিট কালোবাজারিতে?