রাজশাহীতে হাসপাতাল সীমানায় মাইক্রোর চাপায় রোগীর স্বজন নিহত

রাজশাহী

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতাল সীমানার মধ্যকার ইমার্জেন্সি গেটের সামনে অনিয়ন্ত্রিত মাইক্রোবাসের চাপায় একজন নিহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টার এ ঘটনায় নিহতের নাম মুজিবুর রহমান (৫০)। তিনি নওগাঁ জেলার সাপাহার উপজেলার এলেননগর গ্রামের কলিমুদ্দিনের ছেলে। সৌদিতে হজ শেষে সড়ক দুর্ঘটনায় আহাত বড় ভাইকে রামেক হাসপাতালে চিকিৎসা করাতে এসে নিজেই সড়ক দুর্ঘটনায় মারাগেলেন মুজিবুর রহামন। এদিকে এঘটনায় নিহতের পরিবার মুজিবুরের লাশ নিয়ে গেলেও থানায় কোন মামলা হয়নি।

ঘটনার পর স্থানীয়রা মাইক্রোসহ চালককে ধরতে চেষ্টা করলে চালক দ্রুত গতিতে মাইক্রো চালিয়ে পালিয়ে য়ায়। তবে হাসপাতাল ও রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশের (আরএমপি) সিকিউরিটি কেমেরায় ওই মাইক্রোটিকে সনাক্ত করা সম্ভব বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা।
নিহতের পরিবারের দেয়া তথ্য মতে, হজ শেষে নিহতের বড়ভাই সৌদিতে সড়ক দুর্ঘটনায় পায়ে আঘাত পান। দেশে ফিরে আসলে চিকিৎসার জন্য তাকে রামেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ঘটানর শিকার মুজিবুর রহমান বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় স্থানীয় চিকিৎসকদের দেয়া প্রেসক্রিসশন অনুযায়ী ভাইয়ের জন্য ওষুধ আনতে হাসপাতালের মূল ভবনের দরজা দিয়ে বাহির হচ্ছিলেন। এসময় গেটের কাছে অবস্থানরত একটি মাইক্রো অনিয়ন্ত্রিত ভাবে মুজিবুরসহ আরও কয়েকজনের গায়ের ওপর উঠিয়ে দেয় ও ঘটনা বেগতিক দেখে দ্রুত গতিতে মাইক্রোটি পালিয়ে যায়। এসময় মুজিবুরসহ আরও তিনজন আহত হন। পরে আহত তিনজনকে রামেক হাসপাতলের ইমার্জেন্সিতে ভর্তি করা হয়।

দুর্ঘটনায় অন্যদের অবস্থার উন্নতি হলেও আহত মুজিবুরের অবস্থার অবনতি হয়। পরবর্তিতে মুজিবুরকে ওটিতে নিয়ে যাওয়া হয় এবং সেখানে রাত ১১টায় কর্তব্যরত চিকিৎসকেরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
এদিকে নিহতের পরিবার নিজেদের অসহায়ত্ব প্রকাশ করে ও স্থানীয় থানায় কোন অভিযোগ না করে ঐ রাতেই মেডিকেল থেকে মুজিবুরের লাশ দেশের বাড়ি নিয়ে চলে গেছে। স্থানীয় থানা কর্তৃপক্ষ বিষয়টি স্বীকার করে জানিয়েছে, অভিযোগ না পাওয়ায় কোন ব্যবস্থা নেয়া সম্ভব হয়নি।

নিহতের সন্তান শহিদুল ইসলাম অভিযোগ করে বলেন, বাংলাদেশে সড়ক দুর্ঘটনার মামলার কোন সূরাহা হয় না। তাছাড়া আমারা আমাদের বাপের দেহকে নিয়ে আর কোন কাটা-ছেড়া করতে চাই না। তাই মামলা না করে লাশ দাফনের জন্য দেশের বাড়ি নিয়ে যাচ্ছি।
রাজপাড়া থানার অফিস ইনচার্জ (ওসি) হাফিজ হাসপাতল পুলিশ বক্সের সূত্র উল্লেখ করে বলেন, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় হাসপাতলের সীমানর মধ্যে সড়ক দুর্ঘটনায় একজন নিহত হয়েছেন। নিহতের পরিবার অভিযোগ না করায় এখন পর্যন্ত কাওকে গ্রেপ্তাক করা সম্ভব হয়নি। তিনি আরও জানান, অভিযোগ পেলে অবশ্যই ব্যবস্থা নেয়া হবে।

খবর কৃতজ্ঞতাঃ ডেইলি সানশাইন