পুলিশকে ছাত্রাবাসে নজর রাখতে বললেন মেয়র লিটন

রাজশাহী

‘মাদক ও জুয়ার ব্যাপারে কোনো ছাড় নেই। আমার দলের নাম ভাঙিয়ে কেউ যদি মাদক ব্যবসা বা জুয়ার আয়োজন করে তাদের আইনের আওতায় আনবেন। রাজশাহীতে বড় ধরনের অপরাধ অনেক কম। তারপরও কিছু চুরি-ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটে। এগুলো বন্ধে কাজ করতে হবে। এছাড়াও ছাত্রাবাসে থেকে কেউ যাতে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটাতে না পারে সেদিকে নজর রাখতে হবে।’

রোববার দুপুরে নগর পুলিশের শীর্ষ কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের (রাসিক) নবনির্বাচিত মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন এসব কথা বলেন।

নগর ভবনের সরিৎ দত্ত গুপ্ত সভা কক্ষে অনুষ্ঠিত এ সভায় রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশের (আরএমপি) কমিশনার একেএম হাফিজ আক্তারের নেতৃত্বে নগর পুলিশের শীর্ষ কর্মকর্তারা অংশ নেন।

সভায় মেয়র খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, নগরীর অনেক গুরুত্বপূর্ণ স্থানে পুলিশ বক্স নেই। আপনারা পয়েন্টগুলো চিহ্নিত করবেন। দ্রুতই আমরা সেই পয়েন্টগুলোতে পুলিশ বক্সের জন্য স্থাপনা তৈরি করবো। এগুলো চালু হলে নগরীর সার্বিক আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির আরও উন্নতি হবে।

রাজশাহী নগরীর যানজটের অন্যতম কারণ নিয়ন্ত্রণহীন ইজিবাইক। এসব নিয়ন্ত্রণে আরএমপির সহায়তা চান মেয়র। একই সঙ্গে ফুটপাত দখলমুক্ত করে নগরবাসীর চলাচলের পথ উন্মুক্ত করারও আহ্বান জানান তিনি।

সভায় ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা, জনবান্ধব পুলিশিং, মাদক ও জঙ্গিবাদবিরোধী অভিযানসহ চলমান বিভিন্ন কর্মকাণ্ড তুলে ধরে আরএমপি। নগরবাসীর নিরাপত্তায় এসব কর্মকাণ্ডের প্রশংসা করেন মেয়র। নগরীর উন্নয়ন ও আধুনিকায়ন এবং আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় রাসিক ও আরএমপি যৌথভাবে কাজ করবে বলেও তিনি জানান।

সভায় অন্যান্যের মধ্যে আরএমপির অতিরিক্ত কমিশনার সুজায়েত ইসলাম, উপ-কমিশনার (সদর) তানভীর হায়দার চৌধুরী, উপ-কমিশনার (পশ্চিম) আমির জাফর, উপ-কমিশনার (পূর্ব) সাজিদ হোসেন, উপ-কমিশনার (শাহ মখদুম) হেমায়েতুল ইসলাম, উপ-কমিশনার (কাসিয়াডাঙ্গা) জয়নুল আবেদিন, উপ-কমিশনার (সিটিএসবি) আলমগীর হেসেন, নগর পুলিশের মুখপাত্র ও সিনিয়র সহকারী কমিশনার ইফতে খায়ের আলম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে নবনির্বাচিত মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনকে ফুলের শুভেচ্ছা জানান পুলিশ কমিশনার একেএম হাফিজ আক্তারসহ পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

খবর কৃতজ্ঞতাঃ জাগোনিউজ২৪